Environment Awareness : নির্মলতা নিয়ে প্রদর্শনী টাকী গার্লস প্রাথমিক স্কুলে

environment awareness campaign on taki girls primary school kolkata

Environment Awareness: দূষণময় পৃথিবীতে বাঁচতে গেলে অবশ্যই  দরকার গাছ। এর কোন বিকল্প নেই। তাই ক্ষুদে পড়ুয়াদের শিশুমনে সবুজময় পৃথিবী গড়ার বার্তা দিতে গত সোমবার কলকাতার শিয়ালদহ সংলগ্ন টাকী হাউস গভর্মেন্ট স্পনসর্ড গার্লস প্রাথমিক স্কুলের বাগানে আয়োজন করা হয়েছিল বিভিন্ন সচেতনতা মূলক প্রদর্শনী। হরেকরকম প্লাকার – প্রজেক্ট করে এনেছিল স্কুলের তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পড়ুয়ারা। স্কুলের বাগানে শিক্ষিকারা প্রতিটি প্লাকার – প্রজেক্টের বিস্তারিত অর্থ তুলে ধরেন বিদ্যালয়ের সমস্ত পড়ুয়াদের কাছে। এ যেন ‘প্রকৃতির মাঝে বিজ্ঞান’,  যে বিজ্ঞান নির্মলতার যথার্থতা ব্যক্ত করে প্রত্যেকের কাছে।

ইতিমধ্যেই নির্মল বিদ্যালয় সম্পর্কে চতুর্থ শ্রেণির পড়ুয়ারা প্রবন্ধ লিখেছে। মঙ্গলবার নির্মল বিদ্যালয় নিয়ে ছবি আঁকে ক্ষুদে পড়ুয়ারা।শুধু সিলেবাসের পড়াশোনা নয় সামগ্রিকভাবে পরিপূর্ণ পড়ুয়া গড়ছে এই স্কুল। প্রাথমিক বিভাগের প্রধান শিক্ষিকা সুনীতা দাশগুপ্ত এর নেতৃত্বে এহেন পঠনপাঠনে খুশি অভিভাবকরাও। ‘মশাটা বড্ড পাজী, কামড়ে দিল কুটুস। ফুলদানিতে জল পচেছে, নেইকো আমার হুঁশ’। বর্তমান  সময়কালে ডেঙ্গু শুধু মহানগর কলকাতায় নয় দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে মারণ রুপ নিচ্ছে। তাই ডেঙ্গু মোকাবিলায় যেমন চিকিৎসাটা জরুরি, ঠিক তেমনি জনসচেতনতা বাড়ানো টা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

environment awareness campaign on taki girls primary school kolkata
Environment Awareness: নির্মলতা প্রদর্শনী

ঠিক এইরকম পরিস্থিতিতে কলকাতার শিয়ালদহ সংলগ্ন ‘টাকী হাউস গভর্মেন্ট স্পনসর্ড গার্লস স্কুল(প্রাথমিক) ‘ কর্তৃপক্ষ ক্ষুদে পড়ুয়াদের নিয়ে গত সপ্তাহে প্রায় দু কিমি জুড়ে জনসচেতনতা মূলক পদযাত্রার আয়োজন করেছিল।’মিশন নির্মল বিদ্যালয়’ অভিযান টি গত ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয়েছে রাজ্য জুড়ে।আগামী ২৯ সেপ্টেম্বর এই প্রচার কর্মসূচি শেষ হবে। তাই মধ্যিখানে ১৫ টা দিন বিভিন্ন স্কুল কর্তৃপক্ষ নির্মল স্কুল গড়তে তৎপর। এর মধ্যে ৫১০ জন পড়ুয়াদের  ‘টাকী হাউস গভর্মেন্ট স্পনসর্ড গার্লস স্কুল(প্রাথমিক)’ এর উদ্যোগ একটু ব্যতিক্রমী বলা যায়।

শুধু এই সরকারি কর্মসূচির মধ্যে পড়ুয়াদের ‘স্বচ্ছ’ প্রেমীর বার্তা দেওয়া নয়, বছরভর এই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা থেকে অন্যান্য শিক্ষিকা সহ  মহিলা স্টাফরা অত্যন্ত তৎপর স্কুল কে নির্মলতায় রাখতে। প্রতিদিন স্কুলে ঢুকবার সময় হাতে স্যানিটাইজার প্রত্যেক পড়ুয়ার হাতে দেওয়া হয়। মুখে মাস্ক পড়া হয়েছে কিনা তাও দেখা হয়। প্রার্থনার সময় স্বাস্থ্য সচেতনতা মূলক গান পরিবেশন করা হয়। টিফিন টাইমে হাত ভালোমত ধোওয়ার নির্দেশ থাকে ক্ষুদে পড়ুয়াদের প্রতি।

গত সপ্তাহে এই প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চারশোর উপর ক্ষুদে পড়ুয়ারা নিজেদের হাতে গড়া প্রচারমূলক প্লাকার নিয়ে এলাকা প্রদক্ষিণ করে ছিল।ওইদিন পদযাত্রায়  পিপির মেয়েদের দেখার জন্য তৃতীয় /চতুর্থ শ্রেণির দিদিরা ছিলেন ‘অভিভাবকের’ মত।পড়ুয়াদের  কে দেখভালের জন্য প্রধান শিক্ষিকা সুনীতা দাশগুপ্ত সহ অন্যান্য শিক্ষিকারা ছিলেন।টাকী হাউস গভর্মেন্ট স্পনসর্ড গার্লস স্কুল(প্রাথমিক)  এর প্রধান শিক্ষিকা সুনীতা দাশগুপ্ত জানিয়েছেন – ” আমরা রাজাবাজারে মিড ডে মিলের ঘরের পরিচ্ছন্নতা দেখে এসেছি।তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রীদের নিয়ে শিশু সংসদের প্রস্তুতি চলছে। স্কুল চত্বরে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।স্বচ্ছতার উপর ছবি আঁকা হয়েছে এবং নির্মল বিদ্যালয় নিয়ে প্রবন্ধ লেখা হয়েছে পড়ুয়াদের দিয়ে”।

Reporter,
রাজকুমার দাস

follow khobor dobor on google news
Follow Us on Google News

আরও পড়ুন –

Facebook
WhatsApp
Twitter
LinkedIn
Telegram
Email
Pinterest
Twitter